দুই শিক্ষার্থীকে আটকে রেখে মুক্তিপণ দাবী: গ্রেফতার ৪

মুক্তিপনের জন্য আটকে থাকা দুই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার ও চাঁদাবাজদেরে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ মানিকগঞ্জ সিপিসি-৩।

মঙ্গলবার (২৪ মে) সকালে ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলার বারোবাড়ীয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যার-৪ এর কোম্পানি কমান্ডার লেঃ আরিফ হোসেন এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

র‌্যাব কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় অবস্থিত কৃষি প্রশিক্ষন ইনিস্টিটিউটের খান এ রওজাতুল জান্নাত(১৬) এবং মো. সোহেল রানা (১৯) নামের দুই দুই শিক্ষার্থী গতকাল রাত সাড়ে নয়টার দিকে ব্যক্তিগত কাজ সেরে ভাড়া বাসায় ফেরার পথে দুবৃত্তরা রাস্তা আটকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে এবং ভয়ভীতি দেখায়। একপর্যায়ে রাত সাড়ে এগারটার দিকে তাদের একটি বাসা বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে বখাটেরা। সেখানে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হবে বলে হুমকি দেওয়া হয় নচেৎ টাকা দাবী করে বখাটেরা। টাকা দিতে রাজি না হলে রাতভর শিক্ষার্থীদের শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন করা হয়। এক পর্যায়ে টাকা দিতে রাজি হলে মো. সোহেল রানার পরিবারে ফোন করা হয় এবং দেড় লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী করা হয়।

পরবর্তীতে আজ সকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে মো. সোহেল মোবাইলে টাকা আনার কথা বলে কৌশলে সংশ্লিষ্ট র‌্যাব অফিসে জানায়। এই ঘটনার ঘন্টাখানেক পর র‌্যাব ঘটনাস্থল থেকে দুই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার এবং চাঁদাবাজীর ঘটনায় সম্পৃক্ত চারজনকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, ধামরাই উপজেলার দক্ষিন হাতকোড়া গ্রামের মৃত আব্দুল হকের ছেলে মো. আল আমিন (৩০), কৃষ্ণপুরা গ্রামের মৃত মহর আলীর ছেলে পিন্টু (৩৬), বারোবাড়ীয়া গ্রামের আব্দুস সত্তারের ছেলে মো. আবু বকর সিদ্দিক (৩৫) এবং চরিপাড়া গ্রামের মৃত আজিজুল হকের ছেলে মো. আরিফুল ইসলাম (৩৭)।

আসামীদের গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে ব্যবহৃত পাঁচটি মোবাইল ফোন, একটি মোটর সাইকেল ও নগদ ৩২ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে ধামরাই থানায় চাঁদাবাজির মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলমান আছে বলে জানান র‌্যব-৪ এর কোম্পানি কমান্ডার লেঃ আরিফ হোসেন।

Facebook Comments Box
ভাগ