প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন মানিকগঞ্জ সদর মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান

সম্প্রতি দেশের কয়েকটি অনলাইন ও পত্রিকায় ছুটি ছাড়াই দেড় বছর প্রবাসে মানিকগঞ্জ সদর ভাইসচেয়ারম্যান শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সালেহা ইসলাম । তিনি জানান, পাসপোর্ট এবং ভিসা জটিলতায় দেশে ফিরতে পারছিনা। তবে আমার জন্য জনসাধারণের উন্নয়ন কাজ আটকে থাকেনি। আমি ভার্চুয়াল মিটিংয়ে যুক্ত হয়ে উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান রেখেছি। ভিসা এবং পাসপোর্ট নবায়ন করতে মাসখানেক সময় লাগতে পারে, কাগজপত্রের জটিলতা কাটিয়ে দ্রুত দেশে এসে কর্মস্থলে যোগ দিব। আমেরিকা থেকে ভার্চুয়ালি এমনটিই বলছিলেন মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যন সালেহা ইসলাম।
তিনি আরো জানান, পারিবারিক এবং ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে গেল বছরের ২২ মার্চ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৬ মাস ছুটির আবেদন করেন সালেহা। এরপর তিনি আমেরিকায় চলে যান।
তিনি জানান, শারীরিক অসুস্থতা এবং কোভিড পেন্ডামিকের কারণে আমার দেশে ফিরতে সামান্য বিলম্ব হচ্ছে। এরই মধ্যে আমার পাসপোর্ট এবং ভিসার মেয়াদ শেষ হয়েছে। আমার কাছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় আমি এয়ারপোর্ট পর্যন্ত যেতে পারছি না। এই বিষয়গুলো আমি উপজেলা চেয়ারম্যনকে অবগত করেছি তিনি আমার পক্ষে ছুটির সময়সীমা আরো ৬ মাস বাড়িয়ে স্থানীয় সরকার সচিব বরাবর আবেদন করেছেন। চলতি মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত এই ছুটির আবেদন করা হয় বলে জানান তিনি।
ছুটির পুণঃ আবেদন গৃহীত হয়েছে কিনা জানতে চাইলে সালেহা ইসলাম বলেন, আমি দেশে নাই কি করে জানাব। কেউ হয়ত ষড়যন্ত্র করে আমার দেওয়া কাগজ পাঠায়নি। আমি দেশে এসে সব খোঁজ নিব।
রাজনৈতিকভাবে হেয় করতে একটি মহল আমার পিছু লেগেছে জানিয়ে সালেহা ইসলাম বলেন, একজন ভাইস চেয়ারম্যানের যে কাজ আমি তা দূরে থেকেও সঠিকভাবে পালন করি। আমি সার্বক্ষণ মিটিংয়ের খোঁজ-খবর রখি। তিনি এর আগেও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। তার জনপ্রিয়তা নষ্ট করতে কু চক্রী মহল তার বিরুদ্ধে চক্রান্তে লিপ্ত হয়েছে বলেও জানান সালেহা ইসলাম ।
তার পিতা  তছিরুদ্দিন আহম্মেদ ছিলেন সুনামধন্য রাজনীতিবীদ। তেওতা ইউনিয়ন কাউন্সিল  প্রেসিডেন্ট, হাইকোর্ট জুড়িবোর্ডের হাকিম। ঐতিহ্যবাহী তেওতা জমিদারী স্টেটের বিশস্ত নায়েব ছিলেন তিনি। ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান তিনি । তিনি দুইবার সদর উপজেলায় সর্বচ্চ ভোটে বিজয়ী হন। বর্তমানে তিনি সদর উপজেলার প্যানেল চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
সালেহা ইসলাম জানান, নির্বাচনে যারা বার বার ষড়যন্ত্র করে তার জনপ্রিয়তাকে ঠেকাতে পারেনি। তারাই এহেন নিন্দনীয় কার্যক্রমে যুক্ত হয়েছেন।
Facebook Comments Box
ভাগ