মানিকগঞ্জে ১৩০ টাকায় পুলিশে চাকরি পেল ৩৯ জন

মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জে ১৩০ টাকায় পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি পেয়েছেন ৩৯ জন। আজ শনিবার বিকেল ৫ টার দিকে পুলিশ লাইন্স ড্রিল শেডে উত্তীর্ণদের ফলাফল ঘোষণা করেন নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান।

এসময় নিয়োগ বোর্ডে অপর দুই সদস্য রাজবাড়ী সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাইন উদ্দিন চৌধুরী, সাভার সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ হাফিজুর রহমান (প্রশাসন ও অর্থ) এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস) হোসাইন মোহাম্মদ রায়হান উপস্থিত ছিলেন।

জেলা পুলিশ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, মানিকগঞ্জ জেলা থেকে বাংলাদেশ পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে চুড়ান্তভাবে উর্ত্তীণ ৩৯ জনের মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ ও ৬ জন নারী।

গত ২২ মার্চ জেলা পুলিশ লাইন্স মাঠে ১২০০ জন চাকরি প্রার্থীদের শারীরিক মাপ ও কাগজপত্র বাছাই সম্পন্ন হয়। মাঠ পরীক্ষায় ৩২১ জন প্রার্থী উর্ত্তীন হন। পরে ২৯ মার্চ তারিখে লিখিত পরীক্ষায় ১০০ জন উর্ত্তীন হয়। এদের মধ্যে ৩৯ জন চুড়ান্তভাবে মনোনীত হন।

এদিকে কোন রকম ঘুষ লেনদেন ছাড়াই শুধুমাত্র ব্যাংক ড্রাফটের ১৩০ টাকা দিয়ে চাকরিতে মনোনীত হওয়ায় খুশি উর্ত্তীনরা।

চুড়ান্তভাবে উর্ত্তীন মামুন মিয়া জানান, পুলিশে চাকরির প্রতি আমার ধারনাই ছিল ভিন্নরকম। কিন্তু এই প্রথমবার আমি শুধুমাত্রা ব্যাংক ড্রাফটের ১৩০ টাকা জমা দিয়ে চাকরির জন্য উর্ত্তীণ হয়েছি। জেলার মাননীয় পুলিশ সুপারের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ যে, শুধুমাত্র যোগ্যতার ভিত্তিতেই আমাদেরকে উর্ত্তীন করা হয়েছে।

আবেগে আপ্লুত হয়ে নামে আরেক নারী বর্ষা আক্তার জানান, পরীক্ষার শুরু থেকেই মাননীয় পুলিশ সুপার মহোদয় আমাদের সকলকে শুধু একটি কথাই বলেছেন, পুলিশে চাকরির জন্য কোন টাকা লাগেনা। কেউ কোন দালাল চক্রের খপ্পরে যেন না পড়ি। আমরা পুলিশ সুপারের কাছে কৃতজ্ঞ।

তিনি আরো বলেন, আমি ভবিষ্যতে যারা পুলিশে চাকরির জন্য আসবেন তাদের উদ্দেশ্যে একটি কথাই বলবো টাকা দিয়ে কেউ চাকরির জন্য সুযোগ খুজবেননা। মেধা আর যোগ্যতা থাকলেই পুলিশে চাকরি হবে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান বলেন, আমাদের মাননীয় ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজির আহমেদ বিপিএম বার পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগের একটি যুগান্তকারী পদ্ধতির উদ্ধাবন করেছেন। পুলিশ হেডকোয়াটার্স থেকেই সকল পক্রিয়া সম্পন্ন হয়। আমাদের এখানে শুধু ভাইবা গ্রহণ করা হয়। যে কারণে কোন ধরনের অনিয়মের সুযোগ নেই পুলিশে নিয়োগের ক্ষেত্রে।

তিনি আরো বলেন, উর্ত্তীনরা তাদের নিজ নিজ যোগ্যতাতেই চাকরির জন্য মনোনীত হয়েছেন। আমরা শুরু থেকেই প্রার্থীদের অবহিত করেছি তারা যেন কোন ধরনের দালাল, ফরিয়া ও মধ্যস্বত্তভোগীদের খপ্পরে না পরেন। কারণ বাংলাদেশ পুলিশে নিয়োগের ক্ষেত্রে এখন কোন অনিয়মের সুযোগ নেই।

Facebook Comments Box
ভাগ