লালন হত্যা মামলা নিয়ে প্রেস বিজ্ঞপ্তি : রহস্য ভেদ সহ ৪ আসামী গ্রেফতার

মানিকগঞ্জ : গত ২৭/০৬/২০২০ খ্রিঃ ডিসিষ্ট আমির হোসেন দেওয়ান প্রকাশ লালন এর স্ত্রী মমতাজ বেগম বাদীনি হয়ে আসামী ১। খন্দকার উজ্জল ২। খন্দকার অনিক ৩। করম আলী ৪। মোঃ ফাহিম ৫। মোঃ সোহান ৬। আলী হোসেন সহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪ জনদের বিরুদ্ধে এই মর্মে এজাহার দায়ের করেন যে, গত ২৬/০৬/২০২০ খ্রিঃ পূর্ব শত্রুতার জন্য আসামীরা সকাল ০৯.০০ ঘটিকা থেকে ০৯.৩০ ঘটিকার মধ্যে একটি প্রাইভেটকার যোগে জোর করে তার স্বামীকে তুলে নিয়ে যায় এবং দুইটি হোন্ডা প্রাইভেট কারের পেছনে পেছনে যেতে থাকে। ২৭/০৬/২০২০ খ্রিঃ লোকমুখে সংবাদের ভিত্তিতে সিংগাইর থানাধীন বলধারা ইউনিয়নের খৈয়ামুড়ি সিদ্দিকের পাটক্ষেতে গিয়ে বাদীর লোকজন লালনের লাশ সনাক্ত করেন।

বাদীনির অভিযোগের প্রেক্ষিতে সূত্রের মামলা রুজু হয় এবং ওসি সিংগাইরের নির্দেশে এসআই মোঃ নজরুল ইসলাম এর উপর মামলার তদন্তভার অর্পিত হয়।

মামলা রুজুর পূর্বেই ওসির নির্দেশে জরুরী ভিত্তিতে এসআই মোঃ আল মামুন, পিপিএম সঙ্গীয় ফোর্স সহ গত ২৭/০৬/২০২০ খ্রিঃ সকাল ০৭.৩০ ঘটিকায় ঘটনাস্থলে পৌঁছে ডিসিষ্টের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে কং মোঃ আজম খান এর মাধ্যমে মৃত্যুর সঠিক কারন নির্ণয়ের উদ্দেশ্যে ময়না তদন্তের জন্য লাশ মানিকগঞ্জ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এসআই নজরুল ইসলাম তদন্তভার গ্রহন করে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে গত ২৮/০৬/২০২০ খ্রিঃ এজাহারনামীয় আসামী ১। আলী হোসেন(৪০) পিতা- মৃত নোমাজ উদ্দিন প্রকাশ নোমাজ্জা সাং-আজিমপুর দক্ষিনপাড়া থানা-সিংগাইর জেলা-মানিকগঞ্জকে গ্রেফতার করে হত্যা রহস্য উদঘাটন করেন। উক্ত আসামী গত ২৮/০৬/২০২০ খ্রিঃ হত্যাকান্ডে নিজেকে জড়িত সহ অন্যান্য জড়িত আসামীদের নাম প্রকাশ করে বিজ্ঞ আদালতে কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে।

পরবর্তীতে তদন্তকারী অফিসার কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারা মূলে প্রাপ্ত তথ্যাদি ও তদন্তে প্রাপ্ত তথ্যাদি অনুযায়ী ঘটনার সাথে জড়িত আসামী ২। মোঃ জুয়েল (২৯) পিতা-আব্দুল রশিদ সাং-আজিমপুর দক্ষিনপাড়া থানা-সিংগাইর জেলা-মানিকগঞ্জকে গত ০৩/০৭/২০২০ খ্রিঃ গ্রেফতার করেন। উক্ত আসামীও হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকারসহ অপরাপর জড়িত আসামীদের নাম-ঠিকানা প্রকাশ করে গত ০৪/০৭/২০২০ খ্রিঃ বিজ্ঞ আদালতে কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে। এরপর ধারাবাহিকভাবে তদন্তকারী অফিসার গত ০৯/০৭/২০২০ খ্রিঃ আসামী ৩। পিয়াল হাসান (২১) পিতা-সাখাওয়াত হোসেন সাং-আজিমপুর থানা-সিংগাইর জেলা-মানিকগঞ্জকে গ্রেফতার করে ১০/০৭/২০২০ খ্রিঃ আদালতে সোপর্দ করেন। উক্ত আসামীও বিজ্ঞ আদালতে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়ে কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে। এতদ্ব্যতীত তদন্তকারী অফিসার গত ১১/০৭/২০২০ খ্রিঃ আসামী ৪। ড্রাইভার মোঃ সাইদ(৩২) পিতা- মিজানুর রহমান সাং-আজিমপুর কসাইপাড়া থানা-সিংগাইর জেলা-মানিকগঞ্জকে গ্রেফতার করেন এবং উক্ত আসামীর দখল থেকে মামলার ঘটনায় ব্যবহৃত আলামত প্রাইভেটকার (ক) একটি সাদা কার (সেলুন) টয়োটা যার রেজিঃ নং-ঢাকা মেট্রো গ ১৭-৯১২৭ গাড়ীটি উদ্ধারসহ জব্দ করেন। এই আসামীও গত ১২/০৭/২০২০ খ্রিঃ বিজ্ঞ আদালতে কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে।

অধিকন্তু তদন্তকারী অফিসার এজাহারভূক্ত পলাতক আসামী ফাহিম খানের মামলার ঘটনায় ব্যবহৃত (খ) একটি সাদা-কালো HERO HUNK মোটর সাইকেল আলামত হিসেবে গত ২৯/০৬/২০২০ খ্রিঃ জব্দ করেন।

এই করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও দ্রুততম সময়ে মামলাটির রহস্য ভেদ সহ জড়িত ০৪ জন আসামী গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার ঘটনায় জড়িত এজাহারভূক্ত অন্য আসামী উজ্জল সহ তদন্তে প্রাপ্ত জড়িত অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারের জন্য ইতোমধ্যে বিভিন্ন স্থানে একাধিক অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে এবং আসামীদের গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা হয়েছে।

মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা পুলিশ কাজ করছে। এছাড়া আসামীদের কর্তৃক বাদীনিকে ভয়-ভীতি ও চাপ দেওয়ার বিষয়ে বাদীনি বা তার পক্ষে কেহই থানাকে কোনো প্রকার অবহিত করেননি। আসামীদের কর্তৃক বাদীনি পক্ষকে ভয়-ভীতি প্রদর্শনের বিষয়ে অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Facebook Comments
ভাগ